সাহসী ব্যাটিংয়ে বিপদ কাটানোর চেষ্টা সাকিবের

বোর্ডে ৪৫ রান উঠতেই ৬ ব্যাটার সাজঘরে। একের পর এক উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা বাংলাদেশ। চাপ কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়ানো ভীষণ কঠিন এক কাজই। তবে সাকিব আল হাসানের মাথায় যেন চাপ শব্দের জায়গাটাই নেই।

নতুন করে টেস্ট অধিনায়ক হয়েছেন। অধিনায়ক সাকিব রক্ষণাত্মক না হয়ে বেছে নিলেন আক্রমণাত্মক ব্যাটিং। টেস্টটা ঠিক টেস্টের মতো খেলছেন না। যখনই সুযোগ পাচ্ছেন ক্যারিবীয় বোলারদের ওপর চড়াও হচ্ছেন।

ইতিমধ্যে ৩৪ বলে ২৬ রান করে ফেলেছেন সাকিব। এর মধ্যে একটি চারের সঙ্গে একটি ছক্কাও হাঁকিয়েছেন। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ২৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ৭৫ রান। সাকিবের সঙ্গে ২০ বলে ২ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে মেহেদি হাসান মিরাজ।

অ্যান্টিগায় টস হেরে ব্যাটিং করছে বাংলাদেশ। ক্যারিবীয় পেসার কেমার রোচ ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই আঘাত হেনেছেন। বাইরের বল অযথা খোঁচা দিয়ে স্লিপে ক্যাচ হয়েছেন মাহমুদুল হাসান জয় (১ বলে ০)। টেস্টে ১১ ইনিংসে তার শূন্য এ নিয়ে ছয়টি।

এক ওভার বিরতি দিয়ে এসে রোচ তুলে নিয়েছেন টপঅর্ডারের আরেক ব্যাটার নাজমুল হোসেন শান্তকেও। ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে বোল্ড হওয়া শান্তও করেছেন শূন্য, ৫ বল খেলে। ফলে ৩ রান তুলতেই ২ উইকেট হারিয়ে বসে বাংলাদেশ।

এরপর ব্যাট করতে নেমে তামিমের সঙ্গে জুটি বাধার চেষ্টা করেছিলেন মুমিনুল হক। আশা ছিল, নেতৃত্বের ভারমুক্ত হওয়ার পর নিজেকে ফিরে পাবেন টেস্টে বাংলাদেশের সেরা এই ব্যাটার। কিন্তু, না। তিনি নিজেকে যেন হারিয়ে খুঁজছেন। কোনোভাবেই ফর্মে ফিরতে পারছেন না।

আজও সুযোগ ছিল তার সামনে নিজেকে মেলে ধরার। কিন্তু না, মাহমুদুল হাসান জয় আর নাজমুল হোসেন শান্তর দেখানো পথে হেঁটে তিনিও আউট হলেন শূন্য রানে। জেইডেন সিলসের ডেলিভারি তাড়া করতে গিয়ে স্লিপে ক্যাচ দিয়েছেন মুমিনুল। এ নিয়ে টানা আট ইনিংসে দশের নিচে আউট হলেন তিনি।

টাইগারদের আত্মাহুতির মিছিলে ভরসা হয়ে ছিলেন তামিম ইকবাল আর লিটন দাস। বিপর্যয়ের মুখে দাঁড়িয়ে একটি জুটিও গড়েছিলেন। কিন্তু ৫ বলের ব্যবধানে এই দুই ব্যাটারকে হারিয়ে আবারও বিপদে পড়ে বাংলাদেশ।

তামিম-লিটন দুজনই ব্যাটিং লাইনআপে বড় আস্থার প্রতীক। ১৬ রানে ৩ উইকেট হারানো দলকে অনেকটা সময় দুশ্চিন্তামুক্তও রেখেছিলেন তারা। ৫৩ বলের জুটিতে আসে ২৫ রান।

এরপরই আবার বিপদ। আলজেরি জোসেফের লেগ সাইডের বল খেলতে গিয়ে দুর্ভাগ্যজনকভাবে উইকেটরক্ষকের ক্যাচ হয়েছেন তামিম। ৪৩ বলে ৪ বাউন্ডারিতে তিনি করেন ২৯ রান।

এর পরের ওভারে জোড়া আঘাত হানেন কাইল মায়ার্স। লিটন দাস ৩৩ বলে ১২ করে ক্যাচ দেন উইকেটরক্ষকের কাছে। ইয়াসির আলি রাব্বির বদলে সুযোগ পাওয়া নুরুল হাসান সোহান এক বল পরই হয়েছেন এলবিডব্লিউ (০)।

Leave a Reply

Your email address will not be published.